মানবতার সেবায় কাজ করছে (BBM) সেচ্ছাসেবী সংগঠন

স্বাস্থ্য

মাহমুদুল হাসানঃ

ময়মনসিংহ ভিত্তিক একটি স্বেচ্ছাসেবামূলক প্রতিষ্ঠান BBM।
এর প্রতিষ্ঠা হয় ২০১৯ সালের জুন মাসের ২৮ তারিখে । প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই বিবিএম মানবতার সেবায় কাজ করে আসছে। প্রতিষ্ঠানটি শুরু থেকেই আত্মপ্রচারবিমুখ হয়ে কাজ করে যাচ্ছে মানবতার কল্যানে। এই ফেসবুক গ্রুপটি বিবিএমর একটি অনলাইন প্লাটফর্ম। বর্তমানে বিবিএমর হয়ে মানবতার সেবায় কাজ করছে দুই শতাধিক স্বেচ্ছাসেবক। যারা মূলত অফলাইনে বিভিন্ন অসহায় রোগীদের রক্তের যোগান দিয়ে থাকেন এবং আপামর জনসাধারণকে স্বেচ্ছায় রক্তদানে উৎসাহিত করার মাধ্যমে রক্তদানকে সার্বজনীন করার লক্ষে কাজ করে যাচ্ছেন প্রতিনিয়ত।
ফেসবুক গ্রুপে রক্তের জন্য পোস্ট দিয়ে অনেকেই না পেয়ে মন খারাপ করেছেন। আপনাদের কাছে দুঃখপ্রকাশ করছি না দিতে পারার জন্য। তবে একটা তথ্য দেই প্রসঙ্গত, ব্লাড ব্যাংক ময়মনসিংহর অনেক ভলান্টিয়ার নিজের আত্মীয়ের প্রয়োজনে রক্ত পায়নি অনেক সময়। কারন কি জানেন? কারন, বিবিএমর কোনো ভলান্টিয়ার রক্তদাতা বেছে রক্ত দেয়ায় না আর এরা রক্তদান করায় কেবল এবং কেবলমাত্র অসহায় রোগীদের জন্য।
একটা হিসাব দেই, এখন পর্যন্ত বিবিএম থেকে নিয়মিত রক্ত নিচ্ছেন এমন নিবন্ধনকৃত রোগীর (থ্যালাসেমিয়া রোগী) সংখ্যা ২০ ছাড়িয়েছে, নিবন্ধন করেনি কিন্তু রক্ত নিচ্ছে এমন রোগীর সংখ্যাও নেহায়েত কম নয়। এসব রোগীর রক্তের সারাবছরের চাহিদা মেটায় বিবিএমর ভলান্টিয়ারগন আপনাদের মত মহান রক্তদাতাদের সাহায্যে। প্রতিজন রোগীর সাথে প্রতিনিয়ত যোগাযোগ রাখেন একজন নির্ধারিত স্বেচ্ছাসেবক, ওনাদের রক্তের প্রয়োজন হিসেব করে রক্তদাতা যোগাড় রাখেন আগে থেকেই, এরপর হাসপাতালে ভর্তি হতে এলে সার্বিক সহায়তা করার পরে রক্তদান করিয়ে তারপর বলেন আলহামদুলিল্লাহ রক্তদান সম্পন্ন হয়েছে। থ্যালাসেমিয়া রোগীদের বেশিরভাগই প্রতিমাসে রক্ত নিয়ে থাকেন। অনেক রোগী রয়েছেন যাদের মাসে ৪-৫ ব্যাগ রক্তও দিতে হয়। বিভিন্ন সময়ে এসব রোগীদের যাতায়াত ভাড়া, রক্তের ব্যাগ ইত্যাদি প্রদানের মাধ্যমেও সহায়তা করে বিবিএম। আর এই সম্পূর্ণ প্রক্রিয়ায় একজন রোগীর একটি পয়সাও খরচ করতে হয়না, অর্থাৎ সেবাদান হয় সম্পূর্ণ বিনামূল্যে।
বিবিএমর মাধ্যমে প্রতিদিনই রক্তদানে সাহায্য করছে কেউ না কেউ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *